শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, সকাল ৬:২৯
শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩,সকাল ৬:২৯

বাঘারপাড়ায় নকিম হত্যা মামলায় চার্জশিট

স্টাফ রিপোর্টার

৫ ডিসেম্বর, ২০২২,

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

১০:৩০ pm

যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার পশ্চিম পাইকপাড়া গ্রামের বৃদ্ধ নকিম উদ্দিন হত্যা মামলায় দু’জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দিয়েছে ডিবি পুলিশ।

তদন্তে উঠে এসেছে, এ মামলার প্রধান অভিযুক্ত চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার মোহাম্মদজামা গ্রামের মৃত হানিফ আলীর ছেলে লিটন মালিথা নিজের যৌবন ফিরে পেতে অপর আসামি চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার লোকনাথপুর গ্রামের মৃত মোজাম্মেল হকের ছেলে আব্দুল বারেক কবিরাজের পরামর্শ অনুযায়ী তাকে হত্যা করে।

ডিবির ইন্সপেক্টর শহিদুল ইসলাম এই চার্জশিট দাখিল করেন।

ডিবি সূত্র জানায়, আসামি লিটন মালিথা দীর্ঘদিন ধরে যৌন রোগে ভুগছেন। তিনি চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার কবিরাজ আব্দুল বারেকের স্মরণাপন্ন হন। কবিরাজ তাকে একজন মানুষের পুরুষাঙ্গ, অন্ডকোষ ও একটি চোখ উপড়ে আনতে পারলে হারানো যৌবন ফিরিয়ে দিতে পারবেন বলে জানান। তখন থেকে লিটন ওইসব জোগাড় করার চেষ্টা করতে থাকেন। তারই ধারাবাহিকতায় ধান কাটার শ্রমিক সেজে যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার দরাজহাট ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামে কাজ  নেন। একইসাথে কাজ নেন নিহত বৃদ্ধ নকিম উদ্দীন। তারা রাতে একসাথে ঘুমাতেন। এরমধ্যে একরাতে নকিমকে খুন করে পুরুষাঙ্গ, অন্ডকোষ ও চোখ নিয়ে পালিয়ে মানিকগঞ্জ চলে যান লিটন।

গত ৩০ মে সকালে নকিম উদ্দিনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে মাজহারুল ইসলাম অজ্ঞাত পরিচয়দের আসামি করে বাঘারাপাড়া থানায় মামলা করেন। পরে ডিবি পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির সাহায্যে প্রথমে লিটনকে পরে বারেক কবিরাজকে আটক করে। মামলার তদন্তে উল্লিখিত দু’জনের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় চার্জশিট দিয়েছে ডিবি।

Related Posts

বাঘারপাড়ায় নকিম হত্যা মামলায় চার্জশিট

স্টাফ রিপোর্টার

৫ ডিসেম্বর, ২০২২,

১০:৩০ pm

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার পশ্চিম পাইকপাড়া গ্রামের বৃদ্ধ নকিম উদ্দিন হত্যা মামলায় দু’জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দিয়েছে ডিবি পুলিশ।

তদন্তে উঠে এসেছে, এ মামলার প্রধান অভিযুক্ত চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার মোহাম্মদজামা গ্রামের মৃত হানিফ আলীর ছেলে লিটন মালিথা নিজের যৌবন ফিরে পেতে অপর আসামি চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার লোকনাথপুর গ্রামের মৃত মোজাম্মেল হকের ছেলে আব্দুল বারেক কবিরাজের পরামর্শ অনুযায়ী তাকে হত্যা করে।

ডিবির ইন্সপেক্টর শহিদুল ইসলাম এই চার্জশিট দাখিল করেন।

ডিবি সূত্র জানায়, আসামি লিটন মালিথা দীর্ঘদিন ধরে যৌন রোগে ভুগছেন। তিনি চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার কবিরাজ আব্দুল বারেকের স্মরণাপন্ন হন। কবিরাজ তাকে একজন মানুষের পুরুষাঙ্গ, অন্ডকোষ ও একটি চোখ উপড়ে আনতে পারলে হারানো যৌবন ফিরিয়ে দিতে পারবেন বলে জানান। তখন থেকে লিটন ওইসব জোগাড় করার চেষ্টা করতে থাকেন। তারই ধারাবাহিকতায় ধান কাটার শ্রমিক সেজে যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার দরাজহাট ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামে কাজ  নেন। একইসাথে কাজ নেন নিহত বৃদ্ধ নকিম উদ্দীন। তারা রাতে একসাথে ঘুমাতেন। এরমধ্যে একরাতে নকিমকে খুন করে পুরুষাঙ্গ, অন্ডকোষ ও চোখ নিয়ে পালিয়ে মানিকগঞ্জ চলে যান লিটন।

গত ৩০ মে সকালে নকিম উদ্দিনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে মাজহারুল ইসলাম অজ্ঞাত পরিচয়দের আসামি করে বাঘারাপাড়া থানায় মামলা করেন। পরে ডিবি পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির সাহায্যে প্রথমে লিটনকে পরে বারেক কবিরাজকে আটক করে। মামলার তদন্তে উল্লিখিত দু’জনের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় চার্জশিট দিয়েছে ডিবি।

Related Posts