শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ভোর ৫:৪২
শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩,ভোর ৫:৪২

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার আপিল শুনানি শুরু

চারিদিক ডেস্ক

৫ ডিসেম্বর, ২০২২,

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

১০:০২ pm

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার ডেথ রেফারেন্স, আসামিদের আপিল ও জেল আপিলের ওপর হাইকোর্টে শুনানি শুরু হয়েছে। সোমবার এ তথ্য জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন।

বিচারপতি সহিদুল করিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ শুনানি শুরু হয়।

পরে অ্যাটর্নি জেনারেল সাংবাদিকদের বলেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলাটির আজকে থেকে শুনানি আরম্ভ হলো। সোমবার এফআইআর পড়ার পরে অভিযোগপত্রের কিছু অংশ তুলে ধরেন। কাল-পরশুর ভেতরে অভিযোগপত্র পড়া শেষ হবে।

রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা বলেন, এ বছর হয়তো শুনানি শেষ হবে না। আশা করি আগামী বছরের প্রথম দিকে শেষ হবে।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ কী প্রত্যাশা করে- এমন প্রশ্নে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, আমরা আশা করব বিচারিক আদালতের রায় যেন বহাল থাকে।

এ মামলায় যাবজ্জীবন দণ্ডিত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, তার কোনো আপিল দেখিনি। তাই উনার বিষয়টা এখানে আসবে না।

ওই ঘটনায় ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর বিচারিক আদালত সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও বিএনপি নেতা আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড দেন। একই সঙ্গে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান (বর্তমানে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান) তারেক রহমানসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয় অপর ১১ আসামিকে।

পরে ওই বছরের ২৭ নভেম্বর মামলার বিচারিক আদালতের রায় প্রয়োজনীয় নথিসহ হাইকোর্টের ডেথ রেফারেন্স শাখায় এসে পৌঁছে।

আইনজীবীরা জানান, ফৌজদারি মামলায় বিচারিক আদালত যখন আসামিদের মৃত্যুদণ্ড দেন তখন ওই দণ্ড কার্যকরের জন্য হাইকোর্টের অনুমোদনের প্রয়োজন হয়। এজন্য সংশ্লিষ্ট বিচারিক আদালত ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৭৪ ধারা মোতাবেক মামলার সব নথি হাইকোর্টে পাঠিয়ে দেন, যা ডেথ রেফারেন্স নামে পরিচিত।

ওই নথি আসার পর হাইকোর্টের ডেথ রেফারেন্স শাখা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সংশ্লিষ্ট মামলার পেপারবুক প্রস্তুত করে। পেপারবুক প্রস্তুত হলে মামলাটি শুনানির জন্য প্রস্তুত হয়েছে বলে ধরে নেওয়া হয়।

গত বছরের ১৬ আগস্ট পেপারবুক বিজি প্রেস থেকে তৈরির পর সুপ্রিম কোর্টে এসে পৌঁছায়।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলাটি চালানো হয়। অল্পের জন্য ওই হামলা থেকে প্রাণে বেঁচে যান বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি, তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা।

তবে হামলায় আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক, সাবেক রাষ্ট্রপতি (প্রয়াত) জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত হন। আহত হন দলের তিন শতাধিক নেতাকর্মী। ঘটনার পরদিন মতিঝিল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফারুক আহমেদ বাদী হয়ে মামলা করেন।

Related Posts

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার আপিল শুনানি শুরু

চারিদিক ডেস্ক

৫ ডিসেম্বর, ২০২২,

১০:০২ pm

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার ডেথ রেফারেন্স, আসামিদের আপিল ও জেল আপিলের ওপর হাইকোর্টে শুনানি শুরু হয়েছে। সোমবার এ তথ্য জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন।

বিচারপতি সহিদুল করিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ শুনানি শুরু হয়।

পরে অ্যাটর্নি জেনারেল সাংবাদিকদের বলেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলাটির আজকে থেকে শুনানি আরম্ভ হলো। সোমবার এফআইআর পড়ার পরে অভিযোগপত্রের কিছু অংশ তুলে ধরেন। কাল-পরশুর ভেতরে অভিযোগপত্র পড়া শেষ হবে।

রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা বলেন, এ বছর হয়তো শুনানি শেষ হবে না। আশা করি আগামী বছরের প্রথম দিকে শেষ হবে।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ কী প্রত্যাশা করে- এমন প্রশ্নে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, আমরা আশা করব বিচারিক আদালতের রায় যেন বহাল থাকে।

এ মামলায় যাবজ্জীবন দণ্ডিত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, তার কোনো আপিল দেখিনি। তাই উনার বিষয়টা এখানে আসবে না।

ওই ঘটনায় ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর বিচারিক আদালত সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও বিএনপি নেতা আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড দেন। একই সঙ্গে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান (বর্তমানে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান) তারেক রহমানসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয় অপর ১১ আসামিকে।

পরে ওই বছরের ২৭ নভেম্বর মামলার বিচারিক আদালতের রায় প্রয়োজনীয় নথিসহ হাইকোর্টের ডেথ রেফারেন্স শাখায় এসে পৌঁছে।

আইনজীবীরা জানান, ফৌজদারি মামলায় বিচারিক আদালত যখন আসামিদের মৃত্যুদণ্ড দেন তখন ওই দণ্ড কার্যকরের জন্য হাইকোর্টের অনুমোদনের প্রয়োজন হয়। এজন্য সংশ্লিষ্ট বিচারিক আদালত ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৭৪ ধারা মোতাবেক মামলার সব নথি হাইকোর্টে পাঠিয়ে দেন, যা ডেথ রেফারেন্স নামে পরিচিত।

ওই নথি আসার পর হাইকোর্টের ডেথ রেফারেন্স শাখা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সংশ্লিষ্ট মামলার পেপারবুক প্রস্তুত করে। পেপারবুক প্রস্তুত হলে মামলাটি শুনানির জন্য প্রস্তুত হয়েছে বলে ধরে নেওয়া হয়।

গত বছরের ১৬ আগস্ট পেপারবুক বিজি প্রেস থেকে তৈরির পর সুপ্রিম কোর্টে এসে পৌঁছায়।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলাটি চালানো হয়। অল্পের জন্য ওই হামলা থেকে প্রাণে বেঁচে যান বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি, তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা।

তবে হামলায় আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক, সাবেক রাষ্ট্রপতি (প্রয়াত) জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত হন। আহত হন দলের তিন শতাধিক নেতাকর্মী। ঘটনার পরদিন মতিঝিল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফারুক আহমেদ বাদী হয়ে মামলা করেন।

Related Posts