শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ভোর ৫:২৩
শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩,ভোর ৫:২৩

রিজভী-ইশরাকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

চারিদিক ডেস্ক

৫ ডিসেম্বর, ২০২২,

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

৯:৫৫ pm

সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় সোমবার (৫ ডিসেম্বর) বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। একইদিনে রাজধানীর পল্টন থানার দায়ের করা নাশকতার আরেক মামলায় বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেনসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন অপর একটি আদালত।
ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বেঞ্চসহকারী আতিকুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) মামলাটির অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য দিন ধার্য ছিল। এদিন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ তিনজন হাজিরা দেন। রিজাভীসহ তিনজন আদালতে হাজির না হওয়ায় সংশ্লিষ্ট আদালতের বিচারক তোফাজ্জল হোসেন তাদের জামিন বাতিল করে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। একই সঙ্গে আগামী ২৯ মার্চ মামলার অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন।
অন্যদিকে ইশরাকের বিরুদ্ধে দায়ের মামলারও ধার্য তারিখ ছিল আজ। এদিন ৪৫ জন আসামির মধ্যে ইশরাকসহ ১৩ জন আসামি আদালতে হাজির হতে না পাড়ায় তাদের পক্ষে সময়ের আবেদন করেন আইনজীবীরা। শুনানি শেষে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী সময়ের আবেদন নামঞ্জুর গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।
মামলার অভিযোগে থেকে জানা যায়, ঢাকা-১৮ আসনের নির্বাচন বানচাল করার লক্ষে ২০২০ সালের ২৪ জুন আসামিরা একত্রিত হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিপরীত পাশে অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের পুড়িয়ে মারার উদ্দেশে গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেন। এতে গাড়িতে থাকা যাত্রীরা অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান। এ ঘটনায় ইশরাকসহ ৪২ জনের বিরুদ্ধে মতিঝিল থানায় মামলা করেন পুলিশের তৎকালীন এসআই আতাউর রহমান ভূঁইয়া।
রিজভীর মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১২ সালের ১২ সেপ্টেম্বর প্রতিদিনের কাজের অংশ হিসেবে সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ি মিন্টু রোডের ইস্কাটন হয়ে মাতুয়াইলের দিকে যাচ্ছিল। পথে কাকরাইলের বিজয়নগরে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে ২০০-২৫০ জন লাঠিসোঁটা নিয়ে গাড়ি ভাঙচুর করে।
এ ঘটনায় গাড়িচালক আয়নাল বাদী হয়ে পল্টন থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে ২০১৭ সালে ফখরুল-রিজভীসহ নয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। মামলার উল্লেখযোগ্য আসামিরা হলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, রুহুল কবির রিজভী, জামায়াত নেতা শফিকুল ইসলাম মাসুদ ও শফিকুল বারী বাবু। এছাড়া চলতি বছরের ২ মার্চ রাজধানীর হাতিরঝিল থানার পৃথক দুই মামলায় রিজভীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।
অপরদিকে গত বছরের ২৫ নভেম্বর রাজধানীর বাড্ডা থানার বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় রিজভীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ। তাছাড়া ২৫ অক্টোবর রাজধানীর শাহবাগ থানার বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় রিজভীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন মহানগর দায়রা জজ আদালত।

Related Posts

রিজভী-ইশরাকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

চারিদিক ডেস্ক

৫ ডিসেম্বর, ২০২২,

৯:৫৫ pm

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় সোমবার (৫ ডিসেম্বর) বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। একইদিনে রাজধানীর পল্টন থানার দায়ের করা নাশকতার আরেক মামলায় বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেনসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন অপর একটি আদালত।
ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বেঞ্চসহকারী আতিকুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) মামলাটির অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য দিন ধার্য ছিল। এদিন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ তিনজন হাজিরা দেন। রিজাভীসহ তিনজন আদালতে হাজির না হওয়ায় সংশ্লিষ্ট আদালতের বিচারক তোফাজ্জল হোসেন তাদের জামিন বাতিল করে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। একই সঙ্গে আগামী ২৯ মার্চ মামলার অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন।
অন্যদিকে ইশরাকের বিরুদ্ধে দায়ের মামলারও ধার্য তারিখ ছিল আজ। এদিন ৪৫ জন আসামির মধ্যে ইশরাকসহ ১৩ জন আসামি আদালতে হাজির হতে না পাড়ায় তাদের পক্ষে সময়ের আবেদন করেন আইনজীবীরা। শুনানি শেষে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী সময়ের আবেদন নামঞ্জুর গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।
মামলার অভিযোগে থেকে জানা যায়, ঢাকা-১৮ আসনের নির্বাচন বানচাল করার লক্ষে ২০২০ সালের ২৪ জুন আসামিরা একত্রিত হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিপরীত পাশে অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের পুড়িয়ে মারার উদ্দেশে গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেন। এতে গাড়িতে থাকা যাত্রীরা অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান। এ ঘটনায় ইশরাকসহ ৪২ জনের বিরুদ্ধে মতিঝিল থানায় মামলা করেন পুলিশের তৎকালীন এসআই আতাউর রহমান ভূঁইয়া।
রিজভীর মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১২ সালের ১২ সেপ্টেম্বর প্রতিদিনের কাজের অংশ হিসেবে সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ি মিন্টু রোডের ইস্কাটন হয়ে মাতুয়াইলের দিকে যাচ্ছিল। পথে কাকরাইলের বিজয়নগরে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে ২০০-২৫০ জন লাঠিসোঁটা নিয়ে গাড়ি ভাঙচুর করে।
এ ঘটনায় গাড়িচালক আয়নাল বাদী হয়ে পল্টন থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে ২০১৭ সালে ফখরুল-রিজভীসহ নয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। মামলার উল্লেখযোগ্য আসামিরা হলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, রুহুল কবির রিজভী, জামায়াত নেতা শফিকুল ইসলাম মাসুদ ও শফিকুল বারী বাবু। এছাড়া চলতি বছরের ২ মার্চ রাজধানীর হাতিরঝিল থানার পৃথক দুই মামলায় রিজভীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।
অপরদিকে গত বছরের ২৫ নভেম্বর রাজধানীর বাড্ডা থানার বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় রিজভীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ। তাছাড়া ২৫ অক্টোবর রাজধানীর শাহবাগ থানার বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় রিজভীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন মহানগর দায়রা জজ আদালত।

Related Posts