শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, সকাল ৬:৩৫
শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩,সকাল ৬:৩৫

স্থান নির্ধারণ নিয়ে ফের আলোচনায় বিএনপি-পুলিশ

চারিদিক ডেস্ক

৪ ডিসেম্বর, ২০২২,

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

৯:১৬ pm

আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ। যদিও এখনও সমাবেশস্থল নির্ধারণ নিয়ে অবস্থান পরিষ্কার করেননি বিএনপির নেতারা। অন্যদিকে পুলিশও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ছাড়া অন্য কোথাও বিএনপিকে সমাবেশ করতে দিতে চায় না। এ অবস্থায় সমাবেশের স্থান নির্ধারণে ফের পুলিশের সঙ্গে আলোচনায় বসছেন দলটির নেতারা।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) বিকেলে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল ডিএমপি কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুকের সঙ্গে আলোচনা করতে যান।

আলোচনা শেষে ডিএমপির সদরদপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান বলেন, আমরা প্রথম থেকেই বলে আসছি নয়াপল্টনে সমাবেশ করব। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে আমাদের একাধিকবার আলোচনা হয়েছে। এর মধ্যে পুলিশ আমাদের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি দিয়ে চিঠি দিয়েছে। আমরা এ বিষয়ে আজ আলোচনা করতে এসেছিলাম। বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি ও পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে আলোচনা করে এ বিষয়ে ঠিক করতে বলা হয়েছে। ভেন্যুর বিষয়ে আলোচনা তারা করবেন। কাল থেকেও এ আলোচনা চলতে পারে। তারপরই ঠিক হবে ভেন্যু।

ঢাকায় গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করছে দাবি করে আমান উল্লাহ আমান বলেন, আমরা দেশের বিভাগীয় শহরে ৯টি সমাবেশ করেছি। কোথাও কোনো ঝামেলা হয়নি। ঢাকায়ও হবে না। তারপরও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। এসব গ্রেপ্তার সমাবেশের জনসমুদ্র থামানোর জন্য করা হচ্ছে। রাজশাহীর সমাবেশ থেকে ফেরার পথে যুবদলের সভাপতি সালাহউদ্দিন টুকু ও সাধারণ সম্পাদক নয়নকে আমিন বাজারে ব্যারিকেড দিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা সবগুলো মামলায় জামিনে ছিলেন। পুরান ঢাকায় ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক সমাবেশের লিফলেট বিলি করছিলেন এ সময় তার ওপর হামলা হয়েছে। বিএনপি নেতাকর্মীদের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি করতে এমন গ্রেপ্তার ও হামলা করা হচ্ছে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম বলন, বিএনপি কোনো জঙ্গি সংগঠন না। পুলিশ জঙ্গি ধরুক। আমরা-তো জঙ্গি নয়। ৩০ নভেম্বর থেকে এখন পর্যন্ত ৭৫০ জন বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা থাকলেও তারা সবাই আদালত থেকে জামিনে ছিলেন। তারপরও তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এসব বিষয় আমরা ডিএমপি কমিশনারকে বলেছি, এসব গ্রেপ্তার অভিযান বন্ধ করতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম-সচিব মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল,  প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি ও  সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো.ফারুক হোসেন বলেন, আজ বিকেলে ৬ সদস্য বিশিষ্ট বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে বৈঠক করেছে। বৈঠকে বিএনপি প্রতিনিধিদল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পরিবর্তে নয়া পল্টনে সমাবেশ আয়োজনের ইচ্ছা প্রকাশ করে। জবাবে ডিএমপি কমিশনার জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পাশাপাশি বিএনপি যদি ভিন্ন কোনো স্থানের সন্ধান পায় তাহলে সেটি জানাতে পারে। বিষয়টি বিবেচনা করে দেখবে ডিএমপি।

তিনি বলেন, বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি ও ডিএমপির মতিঝিল বিভাগের উপ- পুলিশ কমিশনার আজ রাতে বেশ কয়েকটি ভেন্যু পরিদর্শন করবেন। তারা আজ রাতে রাজধানীর আরামবাগ, পল্টন ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এলাকা পরিদর্শন করবেন।

তিনি আরও বলেন, নিরাপত্তার দৃষ্টিকোণ থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আমরা বিএনপিকে অনুরোধ করেছি ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশটি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে করার জন্য। ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশকে কেন্দ্র করে যত ধরনের নিরাপত্তা সহযোগিতা করার দরকার সেই ধরনের পদক্ষেপ আমরা গ্রহণ করব।

নতুন ভেন্যু খোঁজার প্রস্তাবনাটা কি বিএনপির পক্ষ থেকে এসেছে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা নতুন কোনো ভেন্যুর প্রস্তাব দিইনি কারণ এরই মধ্যে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। বিএনপি প্রস্তাব দিয়েছে তাই তারা নতুন ভেন্যু খুঁজছে। আমরা আশা করি, বিএনপি তাদের সমাবেশটি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেই করবে।

১০ ডিসেম্বরের সমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করছে পুলিশ, এমন অভিযোগের বিষয়ে ডিএমপির এ মুখপাত্র বলেন, পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশে আমাদের যে বিশেষ অভিযানটি চলছে সেটি নিয়মিত কার্যক্রম। প্রতিমাসে আমরা পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের বিশেষ অভিযান ঘোষণা করি। আসন্ন ১৬ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে কোনো ধরনের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির যেন না ঘটে সে বিষয়টিকে সামনে রেখে পুলিশ সদরদপ্তর ১৫ দিনের একটি বিশেষ অভিযান ঘোষণা করেছে। এই নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে ডিএমপি ঢাকা মহানগর এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে। আমাদের বিশেষ অভিযানের লক্ষ্য ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিদের গ্রেপ্তার করা, মাদক ব্যবসায়ী ও জঙ্গিদের গ্রেপ্তার করা। এখানে কোনো রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের হয়রানি করা হচ্ছে না। যাদের বিরুদ্ধে মামলা আছে এবং ওয়ারেন্ট আছে তাদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ হলে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে কোনো কোন্দল বা সংঘর্ষ হতে পারে এরকম ঝুঁকির বিষয়গুলো ডিএমপির বিবেচনায় আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা যখন অনুমতি দিই তখন অনেক বিষয় বিশ্লেষণ করে দেখি। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ঠিক রাখার জন্য যত ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা দরকার সেই প্রস্তুতি আমরা নিচ্ছি। সূত্র: ঢাকাপোস্ট

Related Posts

স্থান নির্ধারণ নিয়ে ফের আলোচনায় বিএনপি-পুলিশ

চারিদিক ডেস্ক

৪ ডিসেম্বর, ২০২২,

৯:১৬ pm

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ। যদিও এখনও সমাবেশস্থল নির্ধারণ নিয়ে অবস্থান পরিষ্কার করেননি বিএনপির নেতারা। অন্যদিকে পুলিশও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ছাড়া অন্য কোথাও বিএনপিকে সমাবেশ করতে দিতে চায় না। এ অবস্থায় সমাবেশের স্থান নির্ধারণে ফের পুলিশের সঙ্গে আলোচনায় বসছেন দলটির নেতারা।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) বিকেলে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল ডিএমপি কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুকের সঙ্গে আলোচনা করতে যান।

আলোচনা শেষে ডিএমপির সদরদপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান বলেন, আমরা প্রথম থেকেই বলে আসছি নয়াপল্টনে সমাবেশ করব। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে আমাদের একাধিকবার আলোচনা হয়েছে। এর মধ্যে পুলিশ আমাদের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি দিয়ে চিঠি দিয়েছে। আমরা এ বিষয়ে আজ আলোচনা করতে এসেছিলাম। বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি ও পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে আলোচনা করে এ বিষয়ে ঠিক করতে বলা হয়েছে। ভেন্যুর বিষয়ে আলোচনা তারা করবেন। কাল থেকেও এ আলোচনা চলতে পারে। তারপরই ঠিক হবে ভেন্যু।

ঢাকায় গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করছে দাবি করে আমান উল্লাহ আমান বলেন, আমরা দেশের বিভাগীয় শহরে ৯টি সমাবেশ করেছি। কোথাও কোনো ঝামেলা হয়নি। ঢাকায়ও হবে না। তারপরও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। এসব গ্রেপ্তার সমাবেশের জনসমুদ্র থামানোর জন্য করা হচ্ছে। রাজশাহীর সমাবেশ থেকে ফেরার পথে যুবদলের সভাপতি সালাহউদ্দিন টুকু ও সাধারণ সম্পাদক নয়নকে আমিন বাজারে ব্যারিকেড দিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা সবগুলো মামলায় জামিনে ছিলেন। পুরান ঢাকায় ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক সমাবেশের লিফলেট বিলি করছিলেন এ সময় তার ওপর হামলা হয়েছে। বিএনপি নেতাকর্মীদের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি করতে এমন গ্রেপ্তার ও হামলা করা হচ্ছে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম বলন, বিএনপি কোনো জঙ্গি সংগঠন না। পুলিশ জঙ্গি ধরুক। আমরা-তো জঙ্গি নয়। ৩০ নভেম্বর থেকে এখন পর্যন্ত ৭৫০ জন বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা থাকলেও তারা সবাই আদালত থেকে জামিনে ছিলেন। তারপরও তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এসব বিষয় আমরা ডিএমপি কমিশনারকে বলেছি, এসব গ্রেপ্তার অভিযান বন্ধ করতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম-সচিব মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল,  প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি ও  সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো.ফারুক হোসেন বলেন, আজ বিকেলে ৬ সদস্য বিশিষ্ট বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে বৈঠক করেছে। বৈঠকে বিএনপি প্রতিনিধিদল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পরিবর্তে নয়া পল্টনে সমাবেশ আয়োজনের ইচ্ছা প্রকাশ করে। জবাবে ডিএমপি কমিশনার জানান, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পাশাপাশি বিএনপি যদি ভিন্ন কোনো স্থানের সন্ধান পায় তাহলে সেটি জানাতে পারে। বিষয়টি বিবেচনা করে দেখবে ডিএমপি।

তিনি বলেন, বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি ও ডিএমপির মতিঝিল বিভাগের উপ- পুলিশ কমিশনার আজ রাতে বেশ কয়েকটি ভেন্যু পরিদর্শন করবেন। তারা আজ রাতে রাজধানীর আরামবাগ, পল্টন ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এলাকা পরিদর্শন করবেন।

তিনি আরও বলেন, নিরাপত্তার দৃষ্টিকোণ থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। আমরা বিএনপিকে অনুরোধ করেছি ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশটি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে করার জন্য। ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশকে কেন্দ্র করে যত ধরনের নিরাপত্তা সহযোগিতা করার দরকার সেই ধরনের পদক্ষেপ আমরা গ্রহণ করব।

নতুন ভেন্যু খোঁজার প্রস্তাবনাটা কি বিএনপির পক্ষ থেকে এসেছে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা নতুন কোনো ভেন্যুর প্রস্তাব দিইনি কারণ এরই মধ্যে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। বিএনপি প্রস্তাব দিয়েছে তাই তারা নতুন ভেন্যু খুঁজছে। আমরা আশা করি, বিএনপি তাদের সমাবেশটি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেই করবে।

১০ ডিসেম্বরের সমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করছে পুলিশ, এমন অভিযোগের বিষয়ে ডিএমপির এ মুখপাত্র বলেন, পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশে আমাদের যে বিশেষ অভিযানটি চলছে সেটি নিয়মিত কার্যক্রম। প্রতিমাসে আমরা পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের বিশেষ অভিযান ঘোষণা করি। আসন্ন ১৬ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে কোনো ধরনের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির যেন না ঘটে সে বিষয়টিকে সামনে রেখে পুলিশ সদরদপ্তর ১৫ দিনের একটি বিশেষ অভিযান ঘোষণা করেছে। এই নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে ডিএমপি ঢাকা মহানগর এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে। আমাদের বিশেষ অভিযানের লক্ষ্য ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিদের গ্রেপ্তার করা, মাদক ব্যবসায়ী ও জঙ্গিদের গ্রেপ্তার করা। এখানে কোনো রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের হয়রানি করা হচ্ছে না। যাদের বিরুদ্ধে মামলা আছে এবং ওয়ারেন্ট আছে তাদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ হলে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে কোনো কোন্দল বা সংঘর্ষ হতে পারে এরকম ঝুঁকির বিষয়গুলো ডিএমপির বিবেচনায় আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা যখন অনুমতি দিই তখন অনেক বিষয় বিশ্লেষণ করে দেখি। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ঠিক রাখার জন্য যত ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা দরকার সেই প্রস্তুতি আমরা নিচ্ছি। সূত্র: ঢাকাপোস্ট

Related Posts