মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, বিকাল ৫:২৫
মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২,বিকাল ৫:২৫

দুই শিশুর ধাক্কাধাক্কির ঘটনায় ৩ জনকে কুপিয়ে জখম

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

১৫ জুলাই, ২০২২,

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

২:০৯ pm

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কিশোরসহ একই পরিবারের তিনজনকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) দামুড়হুদা উপজেলার কোমপুর গ্রামের মাঠপাড়ায় দিবাগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা হলেন, কোমরপুর গ্রামের মাঠপাড়ার আলীহিম আলী (৪৫), তার স্ত্রী সাথী খাতুন (৩৬) ও ছেলে সিহাব আলী (১৪)।

সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আলীহিম আলী বলেন, বিকেলে আমার পাঁচ বছর বয়সী ছোট ছেলে সিফাত আলী ও প্রতিবেশি সমির মিয়ার নাতি ছেলে দশ বছর বয়সী রাসেল মিয়া খেলছিল। একপর্যায়ে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে দুজনের মধ্যে ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। এ সময় আমার বড় ছেলে সিহাব রাসেলকে শাসন করে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। এই ঘটনার জেরে রাতে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের বাড়িতে আসেন রাসেলের নানা সমির মিয়া, তার ছেলে আজিজুল হক ও গ্রামের হাসিবুল আলী নামে এক ব্যক্তি। এ সময় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আমাদের তিনজনকে কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে স্থানীয়রা আমাদের উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছেন।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক শাপলা খাতুন বলেন, তিনজনের শরীরের বিভিন্নস্থানে জখম করা হয়েছে। তবে তারা শঙ্কামুক্ত। প্রাথমিকভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

দামুড়হুদা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, এ ঘটনায় এখনও কেউ থানায় অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Related Posts

দুই শিশুর ধাক্কাধাক্কির ঘটনায় ৩ জনকে কুপিয়ে জখম

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

১৫ জুলাই, ২০২২,

২:০৯ pm

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কিশোরসহ একই পরিবারের তিনজনকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) দামুড়হুদা উপজেলার কোমপুর গ্রামের মাঠপাড়ায় দিবাগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা হলেন, কোমরপুর গ্রামের মাঠপাড়ার আলীহিম আলী (৪৫), তার স্ত্রী সাথী খাতুন (৩৬) ও ছেলে সিহাব আলী (১৪)।

সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আলীহিম আলী বলেন, বিকেলে আমার পাঁচ বছর বয়সী ছোট ছেলে সিফাত আলী ও প্রতিবেশি সমির মিয়ার নাতি ছেলে দশ বছর বয়সী রাসেল মিয়া খেলছিল। একপর্যায়ে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে দুজনের মধ্যে ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। এ সময় আমার বড় ছেলে সিহাব রাসেলকে শাসন করে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। এই ঘটনার জেরে রাতে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের বাড়িতে আসেন রাসেলের নানা সমির মিয়া, তার ছেলে আজিজুল হক ও গ্রামের হাসিবুল আলী নামে এক ব্যক্তি। এ সময় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আমাদের তিনজনকে কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে স্থানীয়রা আমাদের উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছেন।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক শাপলা খাতুন বলেন, তিনজনের শরীরের বিভিন্নস্থানে জখম করা হয়েছে। তবে তারা শঙ্কামুক্ত। প্রাথমিকভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

দামুড়হুদা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, এ ঘটনায় এখনও কেউ থানায় অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Related Posts