রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, সকাল ৭:২১
রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২,সকাল ৭:২১

আ.লীগের দুইপক্ষের সংঘর্ষে আহত ২০, আটক ৫

২৬ জুন, ২০২২,

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

৮:০৭ pm

প্রতিনিধি, বোয়ালমারী-আলফাডাঙ্গা (ফরিদপুর) : ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে হামলায় ২০ জন আহতের ঘটনা ঘটেছে। আহতদের মধ্যে ৪ জনকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ উভয়পক্ষের পাঁচ জনকে আটক করেছে।
সরেজমিন সূত্রে জানা যায়, উপজেলার চতুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, শুকদেবনগর গ্রামের মো. নজরুল ইসলাম খান এবং চতুল ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক মো. দেলোয়ার শরীফের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিরোধ চলে আসছিল। গত শনিবার রাতে শুকদেবনগর গ্রামের আকু শেখের ছেলে (দেলোয়ারের সমর্থক) মো. রাজ্জাক শেখ (১৬) পাশের আলফাডাঙ্গা উপজেলার শিরগ্রাম বাজার থেকে বাড়ি আসার পথে একই গ্রামের আলমগীরের ছেলে এবাদত শেখ সঙ্গীয় লোকজন নিয়ে বেদম মারপিট করে। থানা পুলিশ খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক পুলিশ উপস্থিত হয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত থাকার অনুরোধ করেন।
এ ঘটনার রেশ ধরেই রোববার সকালে নজরুল খানের সমর্থকেরা অতর্কিতভাবে দেলোয়ার শরীফের লোকজনের উপর হামলা চালায় ও বাড়িঘর ভাংচুর করে বলে জানা গেছে। হামলায় এ সময় ২০ জন আহত হয়। মারাত্মক আহত চারজন শুকদেবনগর গ্রামের আব্দুল্লাহ, ইকরাম (৪২), কামাল শেখ (৪০), আলমগীর শেখ (৪৮) ও মো. সেলিমকে (২৮) প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকি আহতরা বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
হামলার খবর পেয়ে থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঘটনাস্থল থেকে উভয়পক্ষের ৫ জনকে আটক করেছে।
চতুল ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শুকদেবনগর গ্রামের মো. দেলোয়ার শরীফ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে নজরুল খানের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তার মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। শনিবার সন্ধ্যায় তার দলের রাজ্জাক নামের একটি ছেলেকে নজরুল শরীফের লোকজন মারধর করে।
এদিকে ওই রাতেই কিছু গ্রামবাসীকে নজরুল খানের দলে ভিড়িয়ে খাওয়া দাওয়ার আয়োজন করে। পরদিন রোববার সকালে সাবেক ইউপি সদস্য কাসেদ ও রেজাউল শেখের নেতৃত্বে তার দলীয় আকু শেখ, ওদুদ শেখ, জাকু শেখ, ওবায়দুর শেখসহ অনেকের বাড়িতে হামলা চালিয়ে বাড়িঘর ভাংচুর ও লোকজনকে আহত করে।
অতর্কিত হামলার বিষয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম খান বলেন, সকালে দেলোয়ার শরীফের লোকজন তার দলের জালাল শেখ, ফরিদ শেখ ও ইউসুফের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করে। এ সময় বাধা দিতে গেলে ইউসুফের স্ত্রী বিলকিস খানমকে মারধর এবং লাঞ্চিত করে। এরপর তাদের উপর হামলা হয়েছে।
রোববার বিকেলে বোয়ালমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল ওহাব জানান, গোলমালের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে। পরে অভিযান চালিয়ে উভয়পক্ষের ৫ জনকে আটক করা হয়। বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত থানায় কোন পক্ষই লিখিত অভিযোগ দেয়নি।

Related Posts

আ.লীগের দুইপক্ষের সংঘর্ষে আহত ২০, আটক ৫

২৬ জুন, ২০২২,

৮:০৭ pm

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
প্রতিনিধি, বোয়ালমারী-আলফাডাঙ্গা (ফরিদপুর) : ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে হামলায় ২০ জন আহতের ঘটনা ঘটেছে। আহতদের মধ্যে ৪ জনকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ উভয়পক্ষের পাঁচ জনকে আটক করেছে।
সরেজমিন সূত্রে জানা যায়, উপজেলার চতুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, শুকদেবনগর গ্রামের মো. নজরুল ইসলাম খান এবং চতুল ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক মো. দেলোয়ার শরীফের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিরোধ চলে আসছিল। গত শনিবার রাতে শুকদেবনগর গ্রামের আকু শেখের ছেলে (দেলোয়ারের সমর্থক) মো. রাজ্জাক শেখ (১৬) পাশের আলফাডাঙ্গা উপজেলার শিরগ্রাম বাজার থেকে বাড়ি আসার পথে একই গ্রামের আলমগীরের ছেলে এবাদত শেখ সঙ্গীয় লোকজন নিয়ে বেদম মারপিট করে। থানা পুলিশ খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক পুলিশ উপস্থিত হয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত থাকার অনুরোধ করেন।
এ ঘটনার রেশ ধরেই রোববার সকালে নজরুল খানের সমর্থকেরা অতর্কিতভাবে দেলোয়ার শরীফের লোকজনের উপর হামলা চালায় ও বাড়িঘর ভাংচুর করে বলে জানা গেছে। হামলায় এ সময় ২০ জন আহত হয়। মারাত্মক আহত চারজন শুকদেবনগর গ্রামের আব্দুল্লাহ, ইকরাম (৪২), কামাল শেখ (৪০), আলমগীর শেখ (৪৮) ও মো. সেলিমকে (২৮) প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকি আহতরা বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
হামলার খবর পেয়ে থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঘটনাস্থল থেকে উভয়পক্ষের ৫ জনকে আটক করেছে।
চতুল ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শুকদেবনগর গ্রামের মো. দেলোয়ার শরীফ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে নজরুল খানের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তার মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। শনিবার সন্ধ্যায় তার দলের রাজ্জাক নামের একটি ছেলেকে নজরুল শরীফের লোকজন মারধর করে।
এদিকে ওই রাতেই কিছু গ্রামবাসীকে নজরুল খানের দলে ভিড়িয়ে খাওয়া দাওয়ার আয়োজন করে। পরদিন রোববার সকালে সাবেক ইউপি সদস্য কাসেদ ও রেজাউল শেখের নেতৃত্বে তার দলীয় আকু শেখ, ওদুদ শেখ, জাকু শেখ, ওবায়দুর শেখসহ অনেকের বাড়িতে হামলা চালিয়ে বাড়িঘর ভাংচুর ও লোকজনকে আহত করে।
অতর্কিত হামলার বিষয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম খান বলেন, সকালে দেলোয়ার শরীফের লোকজন তার দলের জালাল শেখ, ফরিদ শেখ ও ইউসুফের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করে। এ সময় বাধা দিতে গেলে ইউসুফের স্ত্রী বিলকিস খানমকে মারধর এবং লাঞ্চিত করে। এরপর তাদের উপর হামলা হয়েছে।
রোববার বিকেলে বোয়ালমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল ওহাব জানান, গোলমালের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে। পরে অভিযান চালিয়ে উভয়পক্ষের ৫ জনকে আটক করা হয়। বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত থানায় কোন পক্ষই লিখিত অভিযোগ দেয়নি।

Related Posts