শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২, বিকাল ৫:৪৬
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২,বিকাল ৫:৪৬

যশোরের মণিরামপুরের যুদ্ধাপরাধীসহ ৫ মামলার আসামি সিদ্দিকুর রহমান জামিনে মুক্তি পেয়েছেন 

২৮ মে, ২০২২,

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp

১:২৮ পূর্বাহ্ণ

যশোর অফিস
যশোরের মণিরামপুরের যুদ্ধাপরাধীসহ ৫ মামলার
আসামি সিদ্দিকুর রহমান জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাতে তাকে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হয়। সিদ্দিকুর রহমান মণিরামপুর উপজেলার হরেরগাতী গ্রামের মৃত বাহাদুর গাজীর ছেলে । বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার তুহিন কান্তি খান।
সিদ্দিকুর যুদ্ধাপরাধ, আইসিটি, অস্ত্র ও বিস্ফোরকসহ ৫ মামলায় ২০১৬ সালের ১১ ডিসেম্বর থেকে কারাগারে আটক ছিলেন। আদালত সূত্রে জানা গেছে, সিদ্দিকুর রহমান ২০২১ সালের ১০ মার্চ আইসিটি মামলা এবং ২০২২ সালের ২৩ মে অপর ৪ মামলা থেকে জামিন পান। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার তাকে মুক্তি দেয়া হয়।
উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধের সময় সিদ্দিকুর রহমান গাজী মুক্তিযুদ্ধের সময় মনিরামপুর থানার ভোজগাতী, দিকদানা, নোয়ালী, দুর্বাডাঙ্গা, সরষকাটি গ্রাম এবং চিনাটোলা বাজারের পূর্বপাশে হরিহর নদের ওপর স্থাপিত ব্রিজে অপরাধ সংঘটিত করে। তার  বিরুদ্ধে ১১ জনকে হত্যা ও ৪ জনকে ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া,  মনিরামপুর থানার শান্তি কমিটির সদস্য ছিলেন তিনি। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্তে এসব উঠে এসেছে।

Related Posts

যশোরের মণিরামপুরের যুদ্ধাপরাধীসহ ৫ মামলার আসামি সিদ্দিকুর রহমান জামিনে মুক্তি পেয়েছেন 

২৮ মে, ২০২২,

১:২৮ পূর্বাহ্ণ

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
যশোর অফিস
যশোরের মণিরামপুরের যুদ্ধাপরাধীসহ ৫ মামলার
আসামি সিদ্দিকুর রহমান জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাতে তাকে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হয়। সিদ্দিকুর রহমান মণিরামপুর উপজেলার হরেরগাতী গ্রামের মৃত বাহাদুর গাজীর ছেলে । বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার তুহিন কান্তি খান।
সিদ্দিকুর যুদ্ধাপরাধ, আইসিটি, অস্ত্র ও বিস্ফোরকসহ ৫ মামলায় ২০১৬ সালের ১১ ডিসেম্বর থেকে কারাগারে আটক ছিলেন। আদালত সূত্রে জানা গেছে, সিদ্দিকুর রহমান ২০২১ সালের ১০ মার্চ আইসিটি মামলা এবং ২০২২ সালের ২৩ মে অপর ৪ মামলা থেকে জামিন পান। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার তাকে মুক্তি দেয়া হয়।
উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধের সময় সিদ্দিকুর রহমান গাজী মুক্তিযুদ্ধের সময় মনিরামপুর থানার ভোজগাতী, দিকদানা, নোয়ালী, দুর্বাডাঙ্গা, সরষকাটি গ্রাম এবং চিনাটোলা বাজারের পূর্বপাশে হরিহর নদের ওপর স্থাপিত ব্রিজে অপরাধ সংঘটিত করে। তার  বিরুদ্ধে ১১ জনকে হত্যা ও ৪ জনকে ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া,  মনিরামপুর থানার শান্তি কমিটির সদস্য ছিলেন তিনি। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্তে এসব উঠে এসেছে।

Related Posts